গ্রাফিক্স-ডিজাইন
গ্রাফিক্স-ডিজাইন

গ্রাফিক্স ডিজাইন এবং গ্রাফিক্স ডিজাইন কেন শিখব?

অধিকাংশ মানুষেরই অস্পষ্ট ধারণা আছে যে গ্রাফিক্স ডিজাইন কি? ব্যবসার জন্য লগো তৈরি করা? নাকি ফটোশপে ইমেজ নিয়ে কাজ কিরা অথবা পত্রিকা বা বিজ্ঞাপন মেকিং করা? জার্মান শব্দ গ্রাফিক্স থেকে গ্রাফিক্স শব্দটি এসেছে, এর অর্থ চিত্র বা রেখা। গ্রাফ অর্থ চিত্র এবং
ডিজাইন অর্থ নকশা। সহজ ভাষায় চিত্র বা নকশা তৈরি করার প্রক্রিয়া কে গ্রাফিক্স ডিজাইন বলে। অন্য কথায়, ড্রইং, ছবি বা কোন ইমেজ বা অক্ষর শিল্পই গ্রাফিক্স ডিজাইন। এখন আমরা যদি গ্রাফিক্স ডিজাইন কে ভেঙে দেখি তাহলে দুটো অংশ সামনে আসে। একটি গ্রাফিক্স এবং অপরটি ডিজাইন। গ্রাফিক্স হলো দৃশ্যমান বিষয় ও বস্তু যেটা আর্ট,কল্পনা এবং অভিব্যক্তি যা প্রকাশ দ্বারা গঠিত হয়।

উদাহরণ দিয়ে বলা যায় অংকন করা, নকশা করা, লেখনী গ্রাফিক্সের অন্তর্ভুক্ত। যখন কোন কাল্পনিক আর্টকে আমরা একটি পৃষ্ঠে বা
সার্ভিসে বিভিন্ন লাইন, শেপ,টেক্রচার, টাইপোগ্রাফি এর মাধ্যমে প্রকাশ করব, তখন প্রকাশিত শিল্পটিকেই আমরা গ্রাফিক্স বলব। এখন বলা যাক ডিজাইন এর কথা, ডিজাইন হলো কোন কিছু সৃষ্টি করার পূর্বে এটার কার্যবলী বা চেহারা কেমন হবে, সেটা ঠিক করা। সুতারং ডিজাইন হলো সমস্যা সমাধান, চিন্তা ও বাস্তবতা এই তিনটির সমন্বয়। গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কিছু রুলস বা নিয়ম রয়েছে। যেগুলো মেনে চলতে হয়, এগুলোকে বলা হয় প্রিঞ্চিপাল অব ডিজাইন। এই প্রিঞ্চিপাল ডিজাইন গুলো একে অপরের সাথে ওতোপ্রোতো ভাবে জড়িত। আমরা যে সকল সুন্দর ডিজাইন এর কাজ দেখি তার সবগুলোই প্রিঞ্চিপাল অব ডিজাইনকে অনুসরণ করেই করা হয়। গ্রাফিক্স ডিজাইনে গুরুত্বপূর্ণ কিছু বিষয় রয়েছে, সেগুলো হলঃContrust,Hierarchy,Alignment,Balance,Proximity,Repetition, Simplicity ও Function. যখন আমরা ভিউজুয়াল অ্যাঁলাইমেন্ট ও ডিজাইন একত্রিত করব, তখন গ্রাফিক্স ডিজাইন পাব। গ্রাফিক্স ডিজাইন কোন অংকন নয়। গ্রাফিক্স ডিজাইন কোন রং করা ও নয়। কম্পিউটারে কোন পোস্টার বা লোগো তৈরি করা ও গ্রাফিক্স ডিজাইন নয়। কোন জিনিসকে সুন্দর করা ও গ্রাফিক্স ডিজাইন এর অন্তর্ভুক্ত নয়। এগুলো হলো আলাদা আলাদা স্কিল। গ্রাফিক্স ডিজাইন হলো কোন সুনির্দিষ্ট কাজের জন্য একটি সৃজনশীল প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে, কোন তথ্যকে সংগঠিত ও পরিবেশন করা। গ্রাফিক্স ডিজাইনে আমাদের প্রথমেই Brief, Information বা Massage এগুলো বুঝতে হবে। তারপরে রিসার্চ ও চিন্তার মাধ্যমে আইডিয়া জেনারেট করে একটি সলিউশন দিতে হবে।

আমরা কেন গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখবো আমাদের দৈন্দিন জীবনে সমগ্র জায়গাতে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজ ছড়িয়ে আছে। গ্রাফিক্স ডিজাইন একটি বার্তা, অথবা একটি পণ্য যা আপনি দেখতে পাবেন আপনার চারপাশে। আমাদের বই খাতা থেকে শুরু করে বড় বড় ব্যবসা বাণিজ্যের ডিজাইনে ও গ্রাফিক্স ডিজাইন ব্যপক প্রভাব রয়েছে। উদাহরণ দেওয়া যেতে পারে- হয়তো আপনি কেনা কাটা বা গুরুত্বপূর্ণ কিছু বিক্রয় করার চেষ্টা করছেন। তাহলে আপনাকে আপনার চিন্তাধারাটিকে বিশেষভাবে ক্রিয়েটিভ এবং আকর্ষণীয় করে তুলতে হবে। তখন আপনাকে গ্রাফিক্স ডিজাইন ব্যবহার করতে হবে যাতে আপনি আপনার পণ্যটিকে বিশ্বের সামনে তুলে ধরতে পারেন।

এখন কথা হচ্ছে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখলে আমরা কি কি ক্ষেত্রে চাকরি পাবো? আপনার বাস্তব জীবনে অর্থাৎ চাকরির ক্ষেত্রে কোন কোন সেক্টরে আপনি কাজ পেতে পারেনঃ গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে আপনিলোগো ডিজাইনার হিসেবে, বিভিন্ন এডভেটাইজিং কোম্পানিতে, ওয়েব ডিজাইনার হিসেবে, ডিজিটাল মার্কেটিং এজেন্সিতে, ম্যাগাজিন এবং নিউস পেপার কোম্পানি থেকে, অ্যাপ্লিকেশন এন্ড গেইম ডেভেলপমেন্ট কোম্পানিতে, মিডিয়া পাবলিশিং কোম্পানিতে, ব্রেন্ড আইডেন্টিটি ডিজাইনার হিসেবে, অ্যামিনেশন ডিজাইন হিসেবে , ইন্টারফেস ডিজাইন, পেপার ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড প্যাকেজিং, মেশিন গ্রাফিক্স, ইনফোগ্রাফিক্স, আর্ট এন্ড ইলেসট্রেশন, ডিজিটাল আর্ট ইত্যাদি এইসব সেক্টরে আপনি কাজ পেতে পারেন।
গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখলে আপনি যে সব সুবিধা ভোগ করতে পারবেন
১. উচ্চতর চাহিদা
২. উচ্চ বেতন স্কেল
৩. বাড়ীতে বসে কাজ করার সুবিধা
৪. স্বাধীনতা ৫. ক্রিয়েটিভিটি ।
গ্রাফিক্স ডিজাইন এ কি কি বিষয় শিখতে হয় গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে হলে আগে কিছু অপশন সম্পর্কে জানতে হয় আর সেগুলো হলোঃ – টুলবক্সের যাবতীয় টুল গুলোর কাজ অনেক ভালো ভাবে শিখতে হবে, বিভিন্ন ধরনের প্যালেট গুলোর ব্যবহার জানতে হবে ,কাস্টমাইজড ইলাস্ট্রেটর সর্ম্পকে,ডকুমেন্সে টআপ,ফ্রিফারেন্স সেট করা,ফন্ট সর্ম্পকে,ফিল্টারিং,কালার ম্যানেজমেন্ট,সাইজ,ফরমেট,রেজলুশন,ফোরগ্রাউন্ড,ব্যাকগ্রউন্ড। এখন কথা হলো গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে কি প্রয়োজন? গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে হলে ২ টি জিনিসে প্রয়োজন একটা হলো এ্যালিমেন্টস আরেকটি ইকুইপমেন্ট। গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে হলে যে সব সফটওয়্যার গুলোর প্রয়োজন তা নিম্নে যেওয়া হলো:

  • Adobe Photoshop
  • Adobe Illustrator
  • Adobe In design
  • Adobe Flash
  • Corel Paint Shop Photo Pro X3 ইত্যাদি আরও কিছু সফটওয়্যার এর সমন্বয়ে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর আকর্ষণীয় কাজ করা হয়ে থাকে।

যে সব কাজে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর ব্যাবহার করা হয়? বর্তমানে গ্রাফিক্স ডিজাইন বিভিন্ন এমনকি প্রায় অনেক কাজেই ব্যবহার করা হয়। সেই সব কাজ সম্পর্কে নিচে বলা হলো –
১)কোম্পানি ব্যান্ড পরিচয় এবং লোগো তৈরি।
২)প্রিন্টেড করা জিনিস ( বই, নিউস, ম্যাগাজিন)।
৩)অ্যালবাম কভার তৈরি।
৪)ব্যানার বিজ্ঞাপন তৈরি।
৫)ডিজিটাল এডভেটাইজমেন্ট তৈরি করার সময়।
৬) বিভিন্ন ব্লগ এবং ওয়েবসাইট এ এর ব্যবহার হচ্ছে।
৭)প্রত্যেকটি ভোগ্য পণ্য তে থাকা ডিজাইন থেকে শুরু করে পানির বোতলে থাকা ডিজাইন পর্যন্ত
গ্রাফিক্স ডিজাইন এর অন্তর্ভুক্ত।
৮)টিভিতে এবং অনলাইনে ব্যবহার করা গ্রাফিক্স এবং টাইটেল।
৯)বিভিন্ন গ্রিটিং কার্ডস এ।
১০)বিয়ের ইনভিটেশন কার্ডস এ।
১১)টি-শার্ট এবং জামা কাপড় ডিজাইন করার সময়।
১২)অ্যানিমেশন বানানোর সময়।
১৩) বিজনেস ও ভিজিটিং কার্ডস বানানোর সময়। এছাড়াও গ্রাফিক্স ডিজাইনিং এর কাজের প্রয়োজন আরও এমন অনেক কাজ রয়েছে ।

গ্রাফিক্স ডিজাইন কিভাবে শিখবো: এত কিছু জানার পরও কথা থেকে যায় গ্রাফিক্স ডিজাইন কিভাবে কোথায় শিখব? আপনি যদি গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে চান তাহলে আপনার কাছে দুইটি অপশন রয়েছে অর্থাৎ আপনি দুই ভাবে শিখতে পারবেন। তবে সেটা সম্পুর্ন আপনার নিজের ইচ্ছার উপর নির্ভর করে যে আপিনি কিভাবে শিখতে চান। আপনি যে কোন প্রতিষ্ঠান থেকে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর উপর কোর্স নিয়ে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে পারেব তবে তাতে আপনাকে কিছু অর্থ ব্যায় করতে হবে। আর দ্বিতীয় পদ্ধতি হলো নিজে নিজে শিখা। এখন আপনি সিদ্ধান্ত নিবেন যে আপনি কোথা থেকে শিখতে চান তবে আপনি যদি গ্রাফিক্স ডিজাইন এর সার্টিফিকেট চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে কোন প্রতিষ্ঠান থেকে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে হবে। এখন আপনার প্রশ্ন হতে পারে কোন প্রতিষ্ঠান থেকে? আপনি যদি একটু খোঁজ নিয়ে দেখেন তো আপনি অনেক এমিন প্রতিষ্ঠান পেয়ে যাবেন যেখানে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখানো হয়। আপনার নিকটবর্তী কোন প্রতিষ্ঠান এ আপনি ভর্তি হয়ে যাবেন। আপনাকে আগেই বলা হয়েছে যে আপনি যদি কোন প্রতিষ্ঠান থেকে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে কিছু অর্থ ব্যায় করতে হবে। আর এই অর্থ ব্যায় নির্ভর করে আপনার কোর্স এর সময় এর উপর। আপনার কোর্সের মেয়াদ অনুযায়ী আপনাকে ১০ হাজার থেকে ৩০ হাজার টাকার মধ্যে আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কোর্স পেয়ে যাবেন। প্রতিষ্ঠান এ ভর্তি হলে তারা আপনাকে প্রথমে গ্রাফিক্স ডিজাইন সম্পর্কে বেসিক ধারণা দিবে দিবে এবং আপনার সুবিধার জন্য আপনাকে কিছু টিপস ও দিতে পারে। তবে
প্রতিষ্ঠান থেকে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখার পরও আপনাকে নিজে নিজে আরও অনেক কিছু শিখতে হবে। কারণ মার্কেটপ্লেস এ টিকতে হলে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর সাতেহ সাথে আরও অনেক কিছু জানতে হয় তা না হলে আপনি মার্কেট প্লেস এ কাজে পিছিয়ে যাবেন। তবে আপনার জন্য একটা সুবিধা জনক দিক হলো যারা প্রতিষ্ঠান এ ট্রেনিং দেয় তারা আপনাকে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর সম্পুর্ণ কোর্স শেষ করার পর কিছুদিন সাপোর্ট দিতে পারে, সাধারণত এটা হয়ে থাকে। আপনার কোন প্রয়োজনে আপনি ট্রেনিং প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান থেকে সাহায্য সহযোগিতা নিতে পারেন।

এখন আপনার মনের দ্বিতীয় প্রশ্ন হলো নিজে নিজে কিভাবে শিখবেন? আপনার মনে এমন প্রশ্ন জাগতেই পারে এতে অবাক হওয়ার কিছু নেই। আপনার প্রচন্ড ইচ্ছা শক্তি, পরিশ্রম করার ক্ষমতা ও প্রচুর পরিমাণে ধৈর্য্য থাকতে হবে। তাহলেই আপনি ঘরে বসে নিজে নিজে আপনার সুবিধা অনুযায়ী যে কোন সময়ে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে পারেন। তবে আরেকটি কথা হলো এর জন্য আপনার কাছে নেট থাকতে হবে আর একটি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ থাকলে তো আর কথাই নেই। এখন কথা হচ্ছে কিভাবে শিখবেন? বর্তমানে অনলাইনে আপনি হাজার হাজার টিউটোরিয়াল ভিডিও পেয়ে যাবেন গ্রাফিক্স ডিজাইন নিয়। আর ইউটিউব এর কথা তো বলা বাহুল্য, ইউটিউব সম্পর্কে ধারণা নেই এমন মানুষ খুব কমই পাওয়া যায়। আর অনলাইন বা ইউটিউব এ গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজ শিখলে আপনার জন্য সবচেয়ে সুবিধা জনক দিক হচ্ছে আপনার যা জানা প্রয়োজন হবে তার সম্পর্কে সার্চ দিলেই জেনে নিতে পারবেন। আর সবচেয়ে সুবিধার যে দিক তা হলো আপনার অর্থ অর্থাৎ প্রতিষ্ঠান থেকে শিখলে যে ১০ হাজান থেকে ৩০ হাজার টাকা খরচ হতো তা বেঁচে যাবে। এর এই অর্থ আপনি
আপনার অন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ ও ব্যয় করতে পারবেন। বর্তমানে অনেক বড় বড় প্রফেশনাল গ্রাফিক্স ডিজাইনার রয়েছেন যারা অনলাইনে ফ্রিতে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজ শিখাচ্ছেন। আপনার হয়তো বিশ্বাস করতে কষ্ট হচ্ছে তবে যদি এমন হয়ে থাকে তাহলে তাহলে আপনি অনলাইন জগত থেকে একবার ঘুরে আসতে পারেন। সেখানে আপনি সার্চ দিলেই দেখবেন গ্রাফিক্স ডিজাইন এর অনেক কোর্স রয়েছে। বর্তমানে পৃথিবীতে সবচেয়ে বড় শিক্ষক হলো ইউটিউব এবং গুগল। আপনার অজানা সকল তথ্য আপনি এখানে সার্চ দিয়ে জানতে পারবেন খুব সহজে।

গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে কত দিন সময় লাগবে
গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে কত দিন লাগবে তা বলাটা কারো পক্ষে সম্ভব নয়। গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে কত দিন লাগবে তা বলা যায় না কারণ গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজের কোন শেষ নেই। তাছাড়া কত সময় লাগবে তা নির্ভর করবে আপনার শিখার আগ্রহ ও প্রচেষ্টার উপর। আর গ্রাফিক্স ডিজাইন এ আপনি যত বেশি কাজ শিখতে পারবেন আপনার কাজ তত এডভান্স লেভেল এর হবে। এসব বিষয় বাদ দিলে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে কত দিন
সময় লাগবে তার একটা আইডিয়া বা ধারণা দেওয়া যায় – আপনি যদি গ্রাফিক্স ডিজাইন এর উপর স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করতে চান অর্থাৎ আপনি যদি কোন ইউনিভার্সিটি থেকে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর উপর স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করতে ভর্তি হল তাহলে সেখানে আপনি ৪ বছর মেয়াদী কোর্স পাবেন। অর্থাৎ তখন আপনার শিখতে ৪ বছর সময় লাগবে। আপনি যদি কোন প্রতিষ্ঠান মানে কোম ট্রেনিং সেন্টার থেকে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে চান, সেক্ষেত্রে বর্তমানে এমন অনেক ট্রেনিং সেন্টার আছে যেখানে মেয়দী কোর্স করানো হয়। গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কোর্স গুলো ৩ মাস, ৬ মাস এবং ১২ মাসের হয়ে থাকে। ট্রেনিং সেন্টার এর ট্রেনাররা এই সব মেয়দী কোর্স এর নিদিষ্ট সময়ের মধ্যেই গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজ শেখায়। আর নিজে নিজে শিখলে তা নির্ভর করে আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইন এর পিছনে কেমন সময় মনোযোগ শ্রম দিচ্ছেন তার উপর।

গ্রাফিক্স ডিজাইন করে কিভাবে আয় করা যায়?
আপওয়ার্ক থেকে কিভাবে আয় করা যায়?
গ্রাফিক্স ডিজাইন করে ফ্রিলেন্সার থেকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়?
৯৯ডিজাইন থেকে কিভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইন করে আয় করা যায়?

চাকরির ক্ষেত্রে আয় যারা বর্তমানে ভালো মানের গ্রাফিক্স ডিজাইনার তাদের জন্য কাজের অভাব হয় না। আপনি যদি আপনার পরিশ্রম দ্বারা কেজন ভালো মানের গ্রাফিক্স ডিজাইনার হতে পারেন তাহলে তাহলে আপনার ও কাজের অভাব হবে না। আপনি বিভিন্ন কোম্পানির প্রোডাক্ট ডিজাইন করতে পারবেন তার জন্য তারা আপনাকে এক জন গ্রাফিক্স ডিজাইনার হিসেবে পার্মানেন্টলি চাকরি দিয়ে দিবে। মার্কেটে যদি আপনার ভেলু বেশি হয় তাহলে আপনি বিভিন্ন কোম্পানির সাথে গ্রাফিক্স ডিজাইনার হিসেবে কন্টাক্ট সাইন করতে পারেন। বিভিন্ন কোম্পানি গুলোতে এক জন গ্রাফিক্স ডিজাইনার এর বেতন ৩০ হাজার থেকে শুরু করে লক্ষ পর্যন্ত হয়ে থাকে। আপনার যোগ্যতা ও দক্ষতার সাথে সাথে আপনার বেতন বাড়তে থাকবে।

গ্রাফিক্স ডিজাইন করে কিভাবে অনলাইনে আয় করা যায় বর্তমানের প্রায় সব কিছুই অনলাইন ভিত্তিক হয়ে গেছে। ঠিক তেমনই বর্তমান জেনারেশন তার আয়ের উৎস কে অনলাইন ভিত্তিক করে নিয়েছে। বেশিভাগ ইয়ং জেনারেশন অনলাইনে আয় করার জন্য প্রচুর চেষ্টা করছে বলতে গেলে উঠে পড়ে লেগেছে। আর বেশির ভাগ মানুষই তাদের উদ্দেশ্য সফল ভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। আয় করার জন্য অবশ্যই তাদের কে কাজ করতে হচ্ছে, কাজ করা ছাড়া আয় করা কখনো সম্ভব নয়। আর আপনারে জানেনই যে অনলাইনে আয় করার জন্য বিভিন্ন বিষয় রয়েছে যার মধ্যে গ্রাফিক্স ডিজাইন একটি। এখন কথা হচ্ছে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে বিভিন্ন জায়গায় চাকরি করা গেলেও অনলাইনে কিভাবে আয় করা যায় এর মাধ্যমে। অনলাইনে কাজ করে আয় করার জন্য কিছু মার্কেট প্লেস রয়েছে। আর এই মার্কেটপ্লেস গুলো হলো –
upwork.com গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে অনলাইনে কাজ করে আয় করার জন্য আপওয়ার্ক ডটকম হচ্ছে জনপ্রিয় একটি মার্কেটপ্লেস। আপওয়ার্ক ডটকম এ রয়েছে লক্ষ লক্ষ কাজ যার মধ্যে একটি হলো গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজ । আর গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজ শিখলে এই খান থেকে আপনি এক জন গ্রাফিক্স ডিজাইনার হিসেবে কাজ করতে পারবেন। আপনার ভালো পারমেন্স দিয়ে যদি আপনি কয়েকটি কাজ করতে পারেন তাহলে এর পর আর আপনার কাজের অভাব হবে না ।

freelancer.com গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে আপনি যদি ফ্রিলান্সার হিসেবে কাজ করতে চান তাহলে আপনার জন্য জনপ্রিয় একটি মার্কেট প্লেস হলো ফ্রিল্যান্সার ডটকম। এখন আপনার প্রশ্ন হতে পারে ফ্রিলান্সিং কি? ফ্রিলান্সিং সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে আপনি ফ্রিলান্সিং সম্পর্কে একটি আর্টিকেল পড়তে পারেন। তবে আপনার ধারণার জন্য জেনে নিন যে, ফ্রিলান্সিং হলো এমন একটি ওয়ে যেখানে আপনি আপনার অভিজ্ঞতা, দক্ষতা এবং আপনি পারেন এমন কাজের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের কাজ অর্থের বিনিময়ে অন্যদের করে দিবেন। অর্থাৎ তাদের কাজ করে দেওয়ার বিনিময়ে আপনাকে টাকা প্রদান করা হবে। ফ্রিলান্সিং এ আপনি আপনার মন মতো পার্ট-টাইম অথবা ফুল-টাইম যেমন খুশি কাজ করতে পারবেন। আর যেহেতু আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখবেন তাই আপনার কাজ গুলোও হবে গ্রাফিক্স ডিজাইন কে নিয়ে। আর ফ্রিলান্সিং করার জন্য আপনি ফ্রিলান্সিং ডটকম এ একটু অ্যাকাউন্ট খুলে কাজ করতে পারেন। এর মাধ্যমে আপনি খুব ভালো পরিমাণে আয় করতে পারবেন।
99designs.com গ্রাফিক্স ডিজাইন এর জনপ্রিয় মার্কেট প্লেস গুলোর মধ্যে একটি জনপ্রিয় মার্কেত প্লেস হলো নাইন্টি নাইন ডিজাইন ডটকম এর মাধ্যমে আপনি লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করতে পারবেন।
Fiverr যারা অনলাইনে সবসময় ঘাটাঘাটি লরে তাদের জন্য খুবই কমন একটি শব্দ। আপনিও যদি সবসময় অনলাইনে থেকে থাকেন তাহলে ফাইবার শব্দটিব আপনার কাছে অপরিচিত হওয়ার কথা নয়। ফাইবার এর মাধ্যমে আপনি ঘরে বসেই গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজ করতে পারবেন এবং আপনার কাজের পেমেন্ট ও ঘরে বসেই পেয়ে যাবেন।

লিখেছেন তুনাজ্জিনা আরপিতা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here